July 5, 2020

সাস্থ্য ও হেলথ কমপ্লেক্স

সাস্থ্য সম্পর্কে যে কোন সমস্যার সমাধান পেতে আমাদের সাথে থাকুন

দাঁতের যত্নে ১০ করণীয়!

  • দাঁতের যত্নে ১০ করণীয়!

    দাঁত সৌন্দর্যের প্রতীক। আপনি দেখতে যতই সুন্দর বা সুন্দরী হোন না কেন, দাঁত সুন্দর না হলে আপনাকে বিশ্রী দেখাবে। আর আপনাকে পড়তে হবে বিব্রতকর অবস্থায়। তাই জেনে নিন দাঁতের যত্নে ১০ করণীয়।

    ১. ব্রাশের নিয়ম

    দাঁত অতিরিক্ত পরিষ্কারের আশায় অনেকে দীর্ঘ সময় ধরে জোরে ব্রাশ করেন। কিন্তু এতে দাঁতের ওপরের শক্ত আবরণ এনামেল ক্ষয় হয়ে যায়। তখন দাঁত শিরশির করে। এমনকি মাড়ি থেকে দাঁত সরে আসে। তাই নরম শলাকার ব্রাশ দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ওপর থেকে নিচে সব দাঁত আস্তে আস্তে পরিষ্কার করতে হবে, তিন থেকে পাঁচ মিনিট।

    ২. ক্ষতিকর খাবার

    কমলা, আনারসের রস, অ্যালকোহল, সোডা, চকলেট, প্রক্রিয়াজাত ফলের রস ইত্যাদিতে প্রচুর অ্যাসিড থাকে। এসব খাবারে দাঁতের এনামেল ক্ষয় হয়। জুস খাওয়ার সময় স্ট্র ব্যবহার করলে কিছুটা রক্ষা হয়। সবচেয়ে ভালো হয় এ জাতীয় খাবার গ্রহণের পর ভালোভাবে কুলকুচি বা ব্রাশ করা।

    ৩. ব্লিচিং না করা

    বয়সের সঙ্গেসঙ্গে দাঁতের রং পাল্টায়, আগের মতো আর সাদা থাকে না। এমন পরিস্থিতিতে অনেকেই দাঁত সাদা করার জন্য ব্লিচিং করেন। তবে ব্লিচিং করা হলে দাঁতের আবরণ অ্যাসিডের আক্রমণের শিকার হয়। তাই দাঁতে ব্লিচিং করা উচিত নয়।

    ৪. গরম-ঠাণ্ডা খাবার একসঙ্গে নয়

    গরম স্যুপ, পিৎজা, শিঙাড়া বা পেঁয়াজুতে কামড় দেওয়ার পরই ঠাণ্ডা পানীয়তে চুমুক দিলে দাঁতের এনামেলে চুলের চেয়েও সূক্ষ্ম ফাটল ধরে। তাই খুব গরম খাবার আর ঠাণ্ডা পানি বা পানীয় একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়।

    ৫. উপযুক্ত টুথপেস্ট

    দাঁত ঝকঝকে সাদা করে এমন বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হওয়া ঠিক নয়। কেননা দাঁত সাদা করার পদার্থ দাঁতের ক্ষতিই করে। বরং মৃদু ফ্লোরাইডযুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহার করুন।

    ৬. দাঁতের ব্যবহার

    অনেকেই দাঁত দিয়ে বোতলের ছিপি খোলেন বা শক্ত কিছু ভেঙে থাকেন। এতে অনেক সময় দাঁত ভেঙে যায়, ফেটে যায়। তাই দাঁত দিয়ে শক্ত কিছু ভাঙা উচিত নয়।

    ৭. ব্রাশের পাশাপাশি ডেন্টাল ফ্লস

    প্রতিদিন দু বেলা তিন-চার মিনিট দাঁত ব্রাশ করার পাশাপাশি দাঁতের ফাঁক থেকে ময়লা খাদ্যকণা বের করে আনার জন্য ডেন্টাল ফ্লস ব্যবহার করা উচিত। ফ্লস ব্রাশের আগে ব্যবহার করবেন, পরে নয়।

    ৮. ধূমপানকে না বলুন

    সিগারেটে থাকা নিকোটিন দাঁতের এনামেল ক্ষয় করে ফেলে। এছাড়া নিকোটিন দাঁতে কালো দাগ তৈরি করে। তাই ধূমপায়ীদের ধূমপান ত্যাগ করা উচিত।

    ৯. খাবার তালিকায় দুধ রাখুন

    দুধ দাঁতের গঠন মজবুত করতে সাহায্য করে। দুধ ও দুধ থেকে তৈরি খাবার খেলে দাঁত সাদা ও উজ্জ্বল হয়। যেমন- চীজ, পনির, মাখন, দই খান।

    ১০. দাঁত পরীক্ষা

    বছরে অন্তত একবার দাঁতের স্কেলিং করানো যেমন জরুরি, তেমনি দাঁত ও মুখের বিভিন্ন অংশের পরীক্ষা করাও উচিত।